সুন্দর সমাজ গঠনে উন্নত মানসিকতার বিকল্প নেই

মুহাম্মদ এনামুল হক মিঠু:    ০৯:০১ পিএম, ২০২০-০৯-০৯    253


সুন্দর সমাজ গঠনে উন্নত মানসিকতার বিকল্প নেই

পৃথিবীর সূচনা লগ্ন থেকে অবদি পর্যন্ত মানব সভ্যতা একদিনে গড়ে উঠেনি। এই জন্য আমাদের আদি পুরুষদের পর্যায়ক্রমে ধাপে ধাপে অনেক উদ্বাসন পোহাতে হয়েছিল মানব সভ্যতাকে প্রস্ফুটিত করতে। মানুষের সঙ্গে মনের একটা সম্পর্ক আছে। আর মনের উপর সিংহভাগ  মানসিকতা  নির্ভর করে। এই জন্যই অনেক সময় বলা হয়ে থাকে ভাল মনের মানুষ আর মন্দ মনের মানুষ। ভাল মন ভাল মানসিকতা তৈরী করে আর মন্দ মানসিকতার জন্ম দেয়।  

মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। কারণ পৃথিবীতে ইতিবাচক ও নেতিবাচক দুটি দিক আছে যা পার্থক্য নির্ণয় করার জ্ঞানবুদ্ধি মানুষের রয়েছে। এখানেই অন্য প্রাণীদের চেয়ে মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব। কিন্তু জন্মসূত্রে মানুষ হলেই কি আদতে মানুষ হওয়া যায়? মানবশিশু যখন জন্মগ্রহণ করে, তখন সে থাকে শুভ্র মুক্তোর মতো নিষ্কলুষ ও পবিত্র, সব ধরনের অন্যায় আচরণ, পরশ্রীকাতরতা ও বিভেদমূলক চিন্তাধারা থেকে মুক্ত। কিন্তু শয়তানের কুমন্ত্রণায় ও আমাদের পরিবেশের নানা অসঙ্গতি দেখে মানুষে-মানুষে বিভেদের প্রাচীর তৈরি করে। মানবসমাজে নিয়ে আসে বিভীষিকা। আজ ধর্ম, বর্ণ, জাতি, ভাষা ও চিন্তাধারা ভেদাভেদে একাংশ মানুষ হয়েছে মানুষের শত্রু। সমাজ যেমন এগোচ্ছে, নানাভাবে পিছিয়ে পড়ছে । চতুর্দিকে আজ নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধ হারানোর হাহাকার। অথচ এ পৃথিবীতে মানবিক মূল্যবোধকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সমাজ গঠনের অসংখ্য নজির রয়েছে। যার অন্যতম একজন ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হজরত উমর রাদিয়ালস্নাহু আনহু। যখন জেরুজালেমের অধিপতি সোফ্রোনিয়াস বাইজেন্টাইন সরকারের প্রতিনিধি ছিলেন তখন বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের অনেক শহর পর্যুদস্ত করে মুসলমানরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলেন। অজেয় এই বাহিনী মোকাবিলা করার সাহস সোফ্রোনিয়াসের না থাকায় আত্মসমর্পণের জন্য একটি শর্ত দিলেন। শর্ত হলো, মুসলমানদের খলিফা জেরুজালেমে আসলে তার কাছে আত্মসমর্পণ করবেন। খলিফা উমর জেরুজালেমে আসলে সোফ্রোনিয়াস সন্ধির চুক্তিপত্র তার হাতে তুলে দিয়ে আত্মসমর্পণ করলেন। অর্ধজাহানের এই খলিফাকে ঘুরে ঘুরে দেখালেন পুরো শহর। উমর যখন জেরুজালেমে খ্রিষ্টানদের প্রধান গির্জা পরিদর্শন করছিলেন, তখন নামাজের সময়। সোফ্রোনিয়াস তাকে গির্জার ভেতরই নামাজ আদায়ের আমন্ত্রণ জানালেন। দূরদর্শী খলিফা উমর সোফ্রোনিয়াসের উদারতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বললেন, 'আমি যদি আজ এখানে নামাজ আদায় করি, তবে ভবিষ্যতে আমার নামাজের অজুহাত দেখিয়ে এই গির্জাকে মসজিদ বানানোর সম্ভাবনা রয়েছে। এটি ভিন্নধর্মী জনগোষ্ঠীর অধিকার লঙ্ঘনের শামিল। ইসলাম এই অধিকার লঙ্ঘনকে সমর্থন করে না। নামাজ আমি বাইরেই আদায় করব।' খলিফা উমর সেদিন গির্জা থেকে বেরিয়ে যে স্থানে নামাজ আদায় করেছিলেন, জায়গাটি কিছুদিনের ভেতর সত্যিই মসজিদে রূপান্তরিত হয়েছিল। এই মানবতাবোধকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়াই ছিল তাদের দিগ্বিজয়ের মূল চালিকাশক্তি। অথচ বর্তমান বিশ্ব এক অশুভ রাজনীতির দাবানলে পরিচালিত হচ্ছে। সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন, দুর্বলদের প্রতি আঘাত এবং অর্থ ও পেশিশক্তির মোহে মানুষ বেপরোয়া হয়ে উঠছে। সভ্যতার সংঘাত এতটা প্রকট হচ্ছে যে 'মানবাধিকার' শব্দটি এখন শুধু মুখের বুলি আওড়ানো ছাড়া কোনো প্রয়োগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। সমাজটা নানাভাবে বিভক্ত হয়ে আছে। সমাজে যেমন প্রচন্ড মৌলবাদ মাথাচাড়া দিয়েছে, তেমনি অতি আধুনিকতাও আমাদের মানবিক শূন্য করে দিয়েছে। মানুষে-মানুষে হিংসা-বিদ্বেষ বোধহয় অনেক হিংস্র পশুদেরও লজ্জা দেয়।

গরিবের প্রতি আমরা অনেকেই স্বৈরাচারী হয়ে উঠি। আমরা একজন অসহায় রিকশাচালকের সঙ্গে পাঁচ টাকার জন্যও প্রচন্ড দর-কষাকষি করি অথচ আমোদ-ফুর্তি আর বিলাসিতায় অঢেল অর্থকড়ি নষ্ট করি। ক্ষুধার্ত পথশিশুরা সাহায্যের জন্য ছুটে এলে তাদের প্রতি আমাদের কোনো ভ্রূক্ষেপ থাকে না। একজন অসহায় মানুষকে সাহায্য করার সময় আমরা মানিব্যাগের সবচেয়ে ছোট নোটটি খুঁজি অথচ মাজারে গেলে দুহাত বিলিয়ে দান করি। মুমূর্ষু স্বজনের সেবা বা তার ছোট্ট আকাঙ্ক্ষা পূরণ না করে; তার মৃতু্যর পর বিশাল মিলাদের আয়োজন করি। গরিবের হক মেরে আকাশচুম্বি ইমারত ও অর্থবৃত্তের পাহাড় গড়ি। অথচ সেই গরিব মানুষটি দুবেলা অন্ন জোগাতে হিমশিম খায়। অনেকেই জুতা পরা অবস্থায় মেরামতকারীর দিকে পা বাড়িয়ে দেন। কেন, সে গরিব বলে কি মানুষ না! আপনার মতো সুযোগ-সুবিধা ও পরিবেশ পেলে হয়তো সে বিশ্বজয় করতে পারত। পেটের দায়ে যে ব্যক্তিটি চুরি করে, তার বিচার করতে আমরা মহাব্যস্ত। তার জায়গায় নিজেকে কখনই বসিয়ে দেখি না, এমন পরিস্থিতিতে পড়লে আমি কি করতাম। অথচ সমাজের অনেক প্রভাবশালী ও রাজনীতিকরা যখন 'সাগর চুরি' করে, তখন আমরা সেটা কৌশলে এড়িয়ে যাই। তেলা মাথায় তেল দেওয়া মনুষ্যজাতির স্বভাব। এ প্রবণতা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।

পরিবেশ অধিকাংশ ব্যক্তির আচরণের রূপরেখা গড়ে থাকে। তাই সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের জন্য ব্যক্তির আচরণের দিকে নজর দিতে হবে। দিন দিন আমাদের পারিবারিক বন্ধন ভেঙে যাচ্ছে। আমরা বাস্তবের চেয়ে ভার্চুয়াল জগৎকে প্রাধান্য দিচ্ছি। অধিকাংশই বুদ্ধিবৃত্তিকচর্চা ও সামাজিকতাকে উপেক্ষা করে বিধ্বংসী ভিডিও গেম, পর্নোগ্রাফি ও অনলাইনের অন্ধকার জগতেই মেতে উঠছি। আমরা এখন বৃষ্টিতে ভেজার আগ্রহ হারিয়ে ফেলছি, ভুলতে বসেছি প্রকৃতির সান্নিধ্যে যাওয়ার। স্মার্টফোন হাতে পেয়ে সবার মধ্যে থেকেও সবাই যেন একা। তরুণ প্রজন্ম আজ সারাক্ষণ নেশাগ্রস্তের মতো হয়ে যাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন পাতি নেতা ও সেলিব্রিটিদের সঙ্গে ছবি তুলে পোস্ট করার হিড়িক পড়েছে। আচ্ছা, এমনটা করলে কি আপনিও বিশেষ কেউ হয়ে যাবেন? আমাদের নিজের পরিচয়ে বড় হওয়ার প্রবণতা হ্রাস পাচ্ছে। এ জন্য পরিবার থেকেই সন্তানদের মানবিক শিক্ষা দিতে হবে নতুবা ভবিষ্যৎ অন্ধকার, অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। মূল্যবোধের পুনরুদ্ধার ও পারিবারিক বন্ধন অটুট রাখতে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

সমাজে নারী নির্যাতন ও উত্ত্যক্তকরণ প্রবণতা ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। বিবাহ উপযুক্ত একটি মেয়েকে কলঙ্ক দিতে বা বিবাহ ভেঙে দেওয়ার কাজে পটু আমরা। অন্যের সফলতায় যেন নিজের গা জ্বালা করে। এ সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসাটা এখন জরুরি। সুস্থ সমাজ গঠনে মানবিক মূল্যবোধের কোনো বিকল্প নেই। সামাজিক শৃঙ্খলা কেন এভাবে ভেঙ্গে পড়ছে ? কেন সামাজের এত  অবক্ষয় ?  উন্নত মানসিকতায় কেন আজ পচন ধরেছে ? আমাদের বোধদয় আজ তলানিতে কেন?   এর কারণ অনুসন্ধান করে সমাজ এবং রাষ্ট্রকে অত্যন্ত শক্ত অবস্হানে থেকে  কার্যকরী পদক্ষেপ  নিতে হবে । এ ছাড়া  সমাজ ও রাষ্ট্রকে বাঁচাতে প্রত্যেকের অবস্থান থেকে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে অন্যতায়  এ সমাজ ও রাষ্ট্র একদিন  আপনার, আমার এবং আগামী প্রজন্মের জন্য বসবাসের অনুপযোগী হয়ে উঠবে।



রিটেলেড নিউজ

মা-বাবাই হচ্ছেন সন্তানের প্রথম আদর্শ শিক্ষক

মা-বাবাই হচ্ছেন সন্তানের প্রথম আদর্শ শিক্ষক

অতিথি লেখকঃ

মনিকা শর্মা: আমরা এ জীবনকে সুন্দর করে সাজানোর জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি নিরন্তর। মানুষ তার মনের ... বিস্তারিত

আহমদ ছফা : বিস্ময়কর এক নক্ষত্রের নাম

আহমদ ছফা : বিস্ময়কর এক নক্ষত্রের নাম

অনলাইন ডেস্কঃ

আহমদ ছফা : বিস্ময়কর এক নক্ষত্রের নামনূরুল আ‌নোয়ারএকজন মানু‌ষের জীব‌নে বহু রকম ঘটনা ঘ‌টে, তার ... বিস্তারিত

লেখক সমাজচিন্তার বাইরে নয়

লেখক সমাজচিন্তার বাইরে নয়

মুহম্মদ রুহুল আমিন:

আহ! লেখক আর কবি-কবি-সাহিত্যিক কিংবা লেখক যে কেউ হতে পারে না। ইচ্ছে করলেও না। কেননা এখানে নিজেকে ... বিস্তারিত

হায় মৃত্যু! তুমিই সত্য আর কিছু না

হায় মৃত্যু! তুমিই সত্য আর কিছু না

চাটগাঁর সংবাদ অনলাইন ডেস্ক:

হারুনের সঙ্গে দেখা উত্তরা ক্লাবে। একটা কাজে গিয়েছিলাম বিকালের দিকে। হারুন লং টেনিস খেলে ... বিস্তারিত

সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী না হলে বল প্রয়োগের রাজনীতি বেশিদিন থাকে না

সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী না হলে বল প্রয়োগের রাজনীতি বেশিদিন থাকে না

আফছার উদ্দিন লিটন

সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী না হলে বল প্রয়োগের রাজনীতি বেশিদিন থাকে নাআবুল হসানাত মো. বেলাল। একজন ... বিস্তারিত

নিষ্ঠা, সততা ও সাহসের মূর্তপ্রতীক

নিষ্ঠা, সততা ও সাহসের মূর্তপ্রতীক

অতিথি লেখকঃ

তোফায়েল আহমেদ বাংলার গণমানুষের নন্দিত নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম ... বিস্তারিত

সর্বশেষ

মাইজভান্ডার জেয়ারতে চসিক চকবাজার ওয়ার্ড উপনির্বাচনে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হাজী মুহাম্মদ সেলিম রহমান

মাইজভান্ডার জেয়ারতে চসিক চকবাজার ওয়ার্ড উপনির্বাচনে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হাজী মুহাম্মদ সেলিম রহমান

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

ফটিকছড়ির মাইজভাণ্ডার শরীফ জেয়ারতে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) ১৬ নং চকবাজার ওয়ার্ড ... বিস্তারিত

সাতকানিয়ার মাদক কারবারি ৬০০০ ইয়াবা নিয়ে লোহাগাড়ায় আটক

সাতকানিয়ার মাদক কারবারি ৬০০০ ইয়াবা নিয়ে লোহাগাড়ায় আটক

মোঃ সাইফুল ইসলাম, চট্টগ্রামঃ

দক্ষিণ চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় ছয় হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ এক মাদক কারবারি আটক করেছে পুলিশ। ... বিস্তারিত

বাংলাদেশ অটোরিক্সা শ্রমিকলীগের আলোচনা সভা

বাংলাদেশ অটোরিক্সা শ্রমিকলীগের আলোচনা সভা

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

বাংলাদেশ অটোরিক্সা শ্রমিকলীগ চট্টগ্রাম মহানগর কার্যকরি কমিটির এক জরুরী আলোচনা সভা সম্প্রতি ... বিস্তারিত

লোহাগাড়ায় ৬০০০ ইয়াবাসহ ১ যুবক পুলিশের হাতে আটক

লোহাগাড়ায় ৬০০০ ইয়াবাসহ ১ যুবক পুলিশের হাতে আটক

মোঃ সাইফুল ইসলাম, চট্টগ্রামঃ

লোহাগাড়ায় ৬ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ জুনাইদ (৩০) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। ১৩ সেপ্টেম্বর ... বিস্তারিত